ঢাকা - নভেম্বর ১৫, ২০১৯ : ১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬

খোকার খোঁজ নিলেন প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক
নভেম্বর ০৪, ২০১৯ ১৯:০৪
৫২ বার পঠিত

নিউইয়র্কে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার খোঁজখবর নিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আইনগত বাধা থাকলেও তিনি যেন নির্বিঘ্নে দেশে ফিরতে পারেন এ জন্য ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

রোববার নিউইয়র্কের ম্যানহাটনে মেমোরিয়াল স্লোন ক্যাটারিং ক্যান্সার সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবিভক্ত ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকাকে দেখতে যান যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান। এ সময় তিনি জানান, সাদেক হোসেন খোকার শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী মানবিক বিবেচনায় খোকার দেশের ফেরার ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিয়েছেন।

রোববার সাদেক হোসেন খোকার শয্যাপাশে কিছু সময় অতিবাহিত করার পরে সাংবাদিককের কাছে অশ্রুসজল কণ্ঠে সিদ্দিকুর রহমান বলেন, আমি বাংলাদেশ থেকে আজই এসেছি। বাংলাদেশে থাকা অবস্থায় খোকা ভাইয়ের শারীরিক অবস্থার কথা আমি জেনেছি। বাংলাদেশের জনগণ উনার খরব শোনার জন্য তাকিয়ে আছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উনার স্বাস্থ্যের খোঁজ খবর নিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন যেকোনো ভাবে উনাকে দেশে পাঠানো হোক। কিন্তু তার যে অবস্থা দেখলাম তাতে আর মনে হচ্ছে না উনি দেশে ফিরতে পারবেন। দলমত নির্বিশেষে আসুন আমরা সবাই মিলে উনার জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করি।

অপরদিকে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম নিজের ফেসবুক পেজে স্ট্যাটাস দিয়ে জানিয়েছেন, সাদেক হোসেন খোকার পরিবার নিউইয়র্কে ‘ট্রাভেল পারমিট’র জন্য আবেদন করলে বাংলাদেশ মিশন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে। খোকা ও তার স্ত্রীর নামে মামলা আছে এবং গ্রেপ্তারি পরোয়ানাও থাকতে পারে। কিন্তু মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলে জেনেছি, তারা এ অবস্থায় এলে বিষয়টি মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখা হবে।

উল্লেখ্য, সাদেক হোসেন খোকা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। বিএনপি করলেও আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ভালো সম্পর্ক ছিল। ২০১৯ সালে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা যখন দেশ পরিচালনায় আসেন তখন ঢাকার মেয়র ছিলেন সাদেক হোসেন খোকা। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী তার সেই পদ থেকে অপসারণ করেননি। বরং দীর্ঘ ২ বছর তাকে মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালনের সুযোগ দিয়েছিলেন তাকে।



মন্তব্য