ঢাকা - ডিসেম্বর ০৯, ২০১৯ : ২৪ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬

অপরাধী যেই হোক ক্ষমা নেই : প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক
অক্টোবর ২১, ২০১৯ ১১:৩১
১০২ বার পঠিত

দেশকে জঙ্গিবাদ, মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত করতে কাজ শুরু করা হয়েছে। এটি চালিয়ে যাওয়া হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার গণভবনে যুবলীগের বৈঠকে এ কথা বলেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা দেশকে যখন এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। সন্ত্রাস, মাদক ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখছি তখনই সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। এই ক্ষেত্রে যারাই অপরাধী হবে তাদের কোনো ক্ষমা নেই। তাদের বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা নেবো। কারণ আমরা যখন দেশকে উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি, স্বাভাবিকভাবে কিছু মানুষের ভেতরে একটা লোভের সৃষ্টি হয় আর তার ফলাফল হিসেবে সমাজটা ধ্বংসের দিকে যায়। কাজেই এই ধরনের অন্যায় অবিচার কখনো বরদাশত করবো না।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, সকলে মিলে অর্থনৈতিক ভাবে স্বচ্ছল থাকুক, সেটা আমরা চাই। কিন্তু অন্যায়ভাবে যদি কেউ কিছু করে তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া, এটা একান্তভাবে অপরিহার্য বলে আমি মনে করি।। কারণ সমাজে যখন একটা পরিবর্তন আসে তখন স্বাভাবিকভাবে দেখা যায় কিছু কিছু মানুষ রাতারাতি আঙুল ফুলে কলা গাছ হয়ে যায়। সমাজের সর্বস্তরের তৃণমূল মানুষের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন যাতে বজায় থাকে আমরা সেদিকে লক্ষ্য রেখেই কাজ করে যাচ্ছি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন,ভোলার ঘটনায় যারা ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায় তাদের খুঁজে বের করা হবে এবং তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। আমি এ ব্যাপারে দেশবাসীকে বলব ধৈর্য ধরতে। অস্থিতিশীলতা তৈরির জন্য একদল মানুষ ইচ্ছাকৃতভাবে এমন জঘন্য কাজ করছে।
চর বোরহানউদ্দিনে এক হিন্দু ছেলের ফেসবুক আইডি হ্যাক করে সেখানে কতগুলো মিথ্যাচার করা হয়েছে। এ ঘটনায় ছেলেটি থানায় জিডি করে এবং পুলিশ আইডি হ্যাককারীকে গ্রেপ্তারও করে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সেখানে কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে গেছে। হিন্দু ছেলেটির নাম করে যে কথাগুলো লিখেছে সে তো মুসলমান ছেলে। তো একজন মুসলমান হয়ে সে কীভাবে নবী করিম (স.) এর প্রতি বাজে কথা লিখে আরেকজনকে জড়ানোর চেষ্টা করতে পারে। বিক্ষোভকারীদের যারা বুঝাতে গিয়েছিলেন তাদের রক্ষার জন্য পুলিশ গুলি ছুড়েছিল। আইডি হ্যাক, তাতে বাজে কথা লেখা ও সেটাকে কেন্দ্র করে যারা সমাবেত হয়ে পুলিশের ওপর আক্রমণ করল তাদের উদ্দেশ্য কী ছিল? দেখা যাচ্ছে সব জায়গায় ফেসবুকে অপপ্রচার ছড়ানো হচ্ছে অশান্ত পরিবেশ সৃষ্টি করার জন্য। এটা কারা? এদের উদ্দেশ্য কী?
প্রধানমন্ত্রী বলেন,আগামী ডিসেম্বরে দলের কেন্দ্রীয় সম্মেলনকে সামনে রেখে একে একে সব অঙ্গ সংগঠনের সম্মেলন যাতে হয়, সেই ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। মাদক-দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে। দলের কারো বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ থাকলে দল কখনোই মেনে নেবে না।



মন্তব্য