ঢাকা - অক্টোবর ১৮, ২০১৯ : ২ কার্তিক, ১৪২৬

মুসলিম নির্যাতনের প্রতিবাদে চীনাদের ভিসা বাতিল করল যুক্তরাষ্ট্র

নিউজ ডেস্ক
অক্টোবর ০৯, ২০১৯ ১৬:৩২
১২৮ বার পঠিত

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও মঙ্গলবার কয়েক হাজার উইঘুর মুসলিম এবং অন্যান্য সংখ্যালঘু গোষ্ঠীকে আটক ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে চীনা কর্মকর্তাদের উপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছেন।

চীনের জিনজিয়াং প্রদেশে উইঘুর ​​মুসলিম সংখ্যালঘু গোষ্ঠীকে আটক, গণ নজরদারি, ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক অভিব্যক্তির ওপর চূড়ান্ত নিয়ন্ত্রণ এবং জোরপূর্বক দমন-নীপীড়নের জন্য চীন সরকার ও কমিউনিস্ট পার্টির কর্মকর্তারা দায়বদ্ধ বলে মনে করা হয়। এজন্য পাম্পেও চায়না সরকার ও কমিউনিস্ট পার্টির কর্মকর্তাদের ভিসার ওপর নিষেধাজ্ঞা ঘোষণা করেছেন।

কতজন বা কোন কর্মকর্তাকে টার্গেট করা হবে তা বিবৃতিতে নির্দিষ্ট করা হয়নি। স্টেট ডিপার্টমেন্টের একজন মুখপাত্র বলেছেন যে ‘ভিসার রেকর্ডগুলি মার্কিন আইন অনুসারে গোপনীয়, সুতরাং, আমরা এই ভিসা নীতিটির পৃথক প্রয়োগগুলি নিয়ে কোনো তথ্য প্রকাশ করব না।’

মার্কিন গণপ্রজাতন্ত্রী চীনকে জিনজিয়াংয়ে অবিলম্বে দমন-অভিযানের অবসান ঘটাতে, নির্বিচারে আটককৃত সকলকে মুক্তি দিতে এবং বিদেশে অবস্থানরত চীনা মুসলিম সংখ্যালঘু গোষ্ঠীর সদস্যদের চীন প্রত্যাবর্তনের জন্য অনিশ্চিত ভাগ্যের মুখোমুখি হতে বাধ্য করার প্রচেষ্টা বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

পম্পেও বলেছেন, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এই অপব্যবহারের প্রতিক্রিয়া জানাতে তার কর্তৃপক্ষের পর্যালোচনা অব্যাহত রাখবে।’

এদিকে চীনা সরকারী কর্মকর্তারা দাবি করেছেন, ‘সন্ত্রাসবাদ, বিচ্ছিন্নতাবাদ ও চরমপন্থার বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য শিবিরগুলির প্রয়োজন ছিল। আন্তর্জাতিক মিডিয়া, মানবাধিকার সংগঠন এবং প্রাক্তন বন্দিরা শিবিরগুলিতে নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের কিছু বন্দীকে নির্যাতন ও হত্যা করার খবর প্রচার করেছে।

মঙ্গলবার সিএনএনকে দেওয়া এক বিবৃতিতে চীনা দূতাবাসের এক মুখপাত্র ভিসা বিধিনিষেধের নিন্দা করে বলেছেন, ‘এটি আন্তর্জাতিক সম্পর্কের নিয়ন্ত্রণকারী বেসরকারী নিয়মকে লঙ্ঘন করে, চীনের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে এবং চীনের স্বার্থকে ক্ষুণ্ন করে। জিনজিয়াংয়ের বিষয়টি সম্পূর্ণরূপে চীনের অভ্যন্তরীণ বিষয় যা কোনো বিদেশী হস্তক্ষেপের অনুমতি দেয় না।’

সূত্র: সিএনএন



মন্তব্য