ঢাকা - অক্টোবর ১৮, ২০১৯ : ২ কার্তিক, ১৪২৬

প্রফেসরের বিরুদ্ধে যৌনতার অভিযোগ

নিউজ ডেস্ক
অক্টোবর ০৯, ২০১৯ ১১:৩১
৬৭ বার পঠিত

মনিকা ওসাগি। ওবাফেমি আওলোয়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের (ওএইউ) মাস্টার্সের ছাত্রী। ম্যানেজমেন্ট এন্ড অ্যাকাউন্টিং বিভাগের অধ্যাপক রিচার্ড আকিন্ডেলে তার রিসার্চ মেন্টর। তাদের মধ্যে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর সম্পর্ক থাকলেও রিচার্ড ওসাগিকে বিছানায় যাওয়ার প্রস্তাব দেন ঐ প্রফেসর। না হলে তাকে সিজিপিএ কম দেবেন এবং তার গবেষণাপত্র দেখবেন না বলে শর্তারোপ করেন।

এই ঘটনা কেবল তার বেলায় ঘটেছে এমন নয়। এমন ঘটনা অসংখ্য মেয়ের সাথেও ঘটেছে বলে উল্লেখ করেন ওসাগি। কেউ নিরুপায় হলে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চলে গেছে আবার কেউ নীরব থেকেছে। কিন্তু তিনি প্রতিবাদ করার সিদ্ধান্ত নেন। পরের দিন ঐ অধ্যাপকের তার সাথে কথোপকথন রেকর্ড করেন।

ওসাগি বলেন, ‘আসলে তিনি আমার রিসার্চ পেপারের মেন্টর ছিলেন। আমরা একসাথে বই ইডিট করছিলাম। তিনি বললেন, আমার সাথে ডেটে যাবে? স্বাভাবিকভোবেই আমি বললাম না। তিনি বললের, কেন? আমি বললাম আমি কোনো শিক্ষকের সাথে ডেটে যেতে চাই না। তা ছাড়া আমার তুলানায় আপনার বয়স অনেক বেশি।’

তিনি আরও বলেন, আমার সাথে ৫ বার সেক্স করতে হবে তা হলে আমি তোমার রিসার্চ পেপার অনুমোদন করব। না হলে ফেল করিয়ে দেব। আমি বললাম এটা কী আমার কোনো দক্ষতা বাড়াবে? নাকি আমার সিজিপিএর সাথে অ্যাড হবে?

প্রফেসর পরবর্তীতে আমি তার প্রস্তাবে রাজি কী না সেটা জানার জন্য আমাকে ডাকেন। সে সময় আমি আমাদের কথোপকথন রেকর্ড করার সিদ্ধান্ত নেই। কেননা কেউ তো আমার কথা বিশ্বাস করবে না।

প্রথমে অডিওটি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে দেই।

ওএইউ কর্তৃপক্ষ বলছে ওসাগির অভিযোগের বিষয়ে তারা তদন্ত শুরু করেছে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য আকিন্ডেলকে শোকজ করা হয়েছে।

আকিন্ডেল প্রকাশ্যে কথা বলতে রাজি হননি। তিনি বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় তাদের তদন্ত শেষ না করা পর্যন্ত আমার কিছু বলার নেই।’

সূত্র: সিএনএন



মন্তব্য