ঢাকা - অক্টোবর ১৮, ২০১৯ : ২ কার্তিক, ১৪২৬

বিশ্বজয়ের স্বপ্ন দেখছে আট বছরের খুশবু

নিউজ ডেস্ক
সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯ ১৮:৪৬
১৯ বার পঠিত

বয়স মাত্র আট বছর। কিন্তু দাবার চালে মাত করতে পারে যে কোনো প্রাপ্তবয়স্ককে। বাবা-মায়ের অকুণ্ঠ সমর্থনে ছোট্ট খুশবু এগিয়ে যেতে চায় বহুদূর। স্বপ্ন দেখে ক্রীড়াঙ্গণে দেশের মুখ উজ্জ্বল করার। তার নানা অর্জনে সন্তুষ্ট দাবা ফেডারেশন। ক্ষুদে এ দাবাড়ুকে এগিয়ে নিতে সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আশ্বাস ফেডারেশন কর্তাদের।

পুরো নাম ওয়ারসিয়া খুশবু। বয়স মাত্র আট। এ বয়সেই অভিজ্ঞ চালে বিস্ময় জাগাচ্ছে এ ক্ষুদে দাবাড়ু।

শুরুটা স্কুলের শিক্ষকদের উৎসাহে। এরপর বাবার হাত ধরে হাতেখড়ি। পরিবারের সমর্থন আর দাবার কোচিং- এ দুইয়ের সমন্বয়ে এগিয়ে চলা খুশবুর।

দাবা খেলায় কোনো ক্লান্তি নেই খুশবুর। কোচিং ছাড়াও ইউটিউব ও অনলাইনেও চলে প্রশিক্ষণ। দাবার গুটিতে শুধু দেশে নয়, বিদেশের আলো ছড়িয়েছে এ দাবাড়ু।

২০১৮ সালে কলকাতায় অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-৬ দ্য টেলিগ্রাফ স্কুল দাবা চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জিতেছে। থাইল্যান্ডে এশিয়ান ইয়ুথ চ্যাম্পিয়নশিপ-২০১৮ তে অনূর্ধ্ব-৬ ক্যাটাগরিতে জয় করেছে স্বর্ণপদক ও দুটি রৌপ্য। এ ছাড়া উজবেকিস্তানে অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-৭ এশিয়ান স্কুল দাবা চ্যাম্পিয়নশিপ ২০১৯-এ দুটি স্বর্ণ ও একটি রৌপ্য জয়সহ শ্রীলঙ্কায় অনূর্ধ্ব-৮ এশিয়ান ইয়ুথ দাবা চ্যাম্পিয়নশিপে ৮ম স্থান অর্জন করে খুশবু।

ওয়ারসিয়া খুশবু বলে, যখন আমি মেডেল পেয়েছিলাম তখন আমার অনেক ভালো লেগেছিল।

মেয়ের এমন সাফল্যে উচ্ছ্বসিত বাবা-মা। মেয়ের এগিয়ে যাওয়ায় সার্বক্ষণিক ছায়া হয়ে থাকার প্রত্যাশা তাদের।

খুশবুর বাবা মেহেদী কায়সার বলেন, থাইল্যান্ডের খেলার মধ্যে ওর এমন জ্বর ছিল যে আমি কোলে করে নিয়ে বসাইছি ওকে। ও আমাকে নিরাশ করে নাই। আমার শত কষ্ট হলেও আমি ম্যানেজ করে হলেও নিয়ে যাই।

এদিকে খুশবুর একের পর এক অর্জন আশাবাদী করে তুলেছে ফেডারেশনকেও। ক্ষুদে দাবাড়ুদের এগিয়ে নিতে সহায়তা অব্যাহত থাকবে বলে প্রতিশ্রুতি ফেডারেশন কর্তাদের।

দাবা ফেডারেশনের সহ-সভাপতি শহীদ উল্লাহ বলেন, আমরা চিন্তা করলাম যারা জুনিয়র লেভেলে ভালো করেছে তাদের একটু ট্রেনিং দেয়া হোক।

পৃষ্ঠপোষকতা পেলে খুশবুর মেধার আলো ছড়িয়ে পড়তে পারে বিশ্বজুড়ে।



মন্তব্য