ঢাকা - সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯ : ৪ আশ্বিন, ১৪২৬

কংগ্রেস ছাড়লেন ঊর্মিলা মাতন্ডকর

নিউজ ডেস্ক
সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯ ২২:১২
৮৬ বার পঠিত

ভারতীয় ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক দল কংগ্রেসে মাস খানেক আগেই বড় আয়োজনে যোগ দিয়েছিলেন বলিউড অভিনেত্রী ঊর্মিলা মাতন্ডকর। সমালোচকরা তখন বলেছিলেন, লোকসভা নির্বাচনের আগে দলে যোগ দিয়ে নির্বাচনে সুবিধা নিতে চান তিনি। নিজ স্বার্থের জন্যে দলে যোগ দিয়েছেন ঊর্মিলা। ফল খারাপ হলে পা টেনে নেবেন।

সমালোচকদের কথা কিছুটা ঠিক হলো। ভারতের লোকসভা নির্বাচন মুম্বাইয়ের একটি আসন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে হেরেছেন তিনি। মঙ্গলবার দল ছেড়েছেন ঊর্মিলা। নির্বাচন সমাপ্ত হয়েছে মাত্র কয়েক মাস হলো। এরই মধ্যে ঊর্মিলার দল ছাড়ার খবরকে ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীরা অন্যভাবে নিচ্ছেন।

তবে ঊর্মিলা বলছেন ভিন্ন কথা। তার অভিযোগের তীর দলের শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিদের দিকে। একাধিক ভারতীয় গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, ১৬ মে তৎকালীন মুম্বাই কংগ্রেসের সভাপতি মিলিন্দ দেওরাকে চিঠি দিয়েছিলাম। তার পরেও দলের পক্ষ থেকে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। তারপর দল ছাড়ার ভাবনা আমার মাথায় আসে।

মিলিন্দ দেওরাকে কী নিয়ে চিঠিতে কী লেখা ছিল। সে বিষয়ে গণমাধ্যম জানায়, ঊর্মিলার অভিযোগ মূলত, কংগ্রেস নেতা সঞ্জয় নিরুপম, সন্দেশ কোন্দভিলকর ও ভূষণ পাটিলের বিরুদ্ধে। লোকসভা নির্বাচনের আগে কংগ্রেসে যোগ দেন ঊর্মিলা। ভোটে মুম্বাই উত্তর কেন্দ্র থেকে কংগ্রেসের হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। ফল ঘোষণার আগেই মুম্বাইয়ের তৎকালীন কংগ্রেস প্রেসিডেন্ট মিলিন্দ দেওরাকে চিঠি পাঠিয়েছিলেন ঊর্মিলা। তাতে তৃণমূলের কর্মীদের সঙ্গে নেতাদের সমন্বয়ের অভাব বিষয়ে অভিযোগ করেন। নেতাদের ব্যর্থতা নিয়েও অভিযোগ করেন তিনি।

উল্লেখ্য, লোকসভা নির্বাচনে মুম্বাইয়ের পাঁচটি আসনে হারে কংগ্রেস। তবে মিলিন্দকে পাঠানো ওই চিঠি ফাঁস হয়ে যায়। সে বিষয়েও ক্ষেপেছেন অভিনেত্রী। তিনি বলেন, দলে কায়েমি স্বার্থ ও ক্ষুদ্র দলাদলির রাজনীতিই প্রবল। যখন এই গোপন চিঠি গণমাধ্যমের কাছে প্রকাশ্যে নিয়ে আসা হয়, অর্থাৎ ফাঁস করা হয়। আমার মতে, এটা বিশ্বাসঘাতকতা।



মন্তব্য