ঢাকা - সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯ : ৪ আশ্বিন, ১৪২৬

তেলের দাম বৃদ্ধিতে সৌদির নতুন মন্ত্রীর সমর্থন

নিউজ ডেস্ক
সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯ ০৭:৪৪
৫০ বার পঠিত

অর্গানাইজেশন অব দ্য পেট্রোলিয়াম এক্সপোর্টিং কান্ট্রিজ (ওপেক) ও তেল উৎপাদনকারী অন্যান্য দেশের মাধ্যমে তেলের দাম বাড়ানোর জন্য তেল উৎপাদন কমানোর প্রস্তাবে বিশ্বের বৃহত্তম তেল রফতানিকারক দেশ সৌদি আরবের নতুন জ্বালানিমন্ত্রী প্রিন্স আবদুল আজিজ বিন সালমান সমর্থন দেয়া অব্যাহত রাখবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের জ্বালানি ও শিল্পমন্ত্রী সুহেল আল-মাজরুই আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমে যাওয়ার পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে উৎপাদন কমায়ে দেয়াকে সমর্থন করেছেন। তিনি গত রোববার বলেছেন, ওপেকের সদস্য দেশগুলো এবং এসব দেশের মিত্র দেশগুলো অপরিশোধিত তেলের বাজারের ভারসাম্য অর্জনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

তেলের সম্ভাব্য উৎপাদন কমানোর বিষয়ে জানতে চাইলে আল-মাজরুই আবুধাবিতে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন, তিনি তেলের বর্তমান দাম নিয়ে অতটা উদ্বিগ্ন নন, যতটা তেল সরবরাহের মাত্রা নিয়ে উদ্বিগ্ন। বাণিজ্য ও ভূ-রাজনৈতিক উত্তেজনা বাজারে তেলের চাহিদা ও সরবরাহে বেশি প্রভাব ফেলছে। তবে তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বাণিজ্য যুদ্ধ দ্বারা প্রভাবিত হয়ে তেলের দাম বৃদ্ধির জন্য পদক্ষেপের বিষয়টি হুট করে নিতে অস্বীকার করেছিলেন। মাজরুই গত রোববার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, তেলের চাহিদা ধীরে ধীরে কমে যাওয়ার আশঙ্কা তখনই বাড়বে, যখন উত্তেজনা বাড়বে। যদিও আমি ব্যক্তিগতভাবে আশাবাদী যে বিষয়টি তেমনটি হবে না।

রোববার খালিদ আল-ফালিহকে বদলে ওপেকে সৌদি প্রতিনিধিদলের দীর্ঘ দিনের সদস্য ও সৌদি বাদশাহ সালমানের ছেলে প্রিন্স আবদুল আাজিজকে এই পদে নিয়োগ করা হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে এই প্রথম রাজ পরিবারের কোনো সদস্য বিশ্বের শীর্ষ তেল রফতানিকারক দেশ সৌদি আরবের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেলেন। ১৯৬০ সালের পর সৌদি আরবে পাঁচজন তেলমন্ত্রী দায়িত্ব পালন করেছেন। যাদের কেউই রাজ পরিবারের সদস্য ছিলেন না। প্রিন্স আবদুল আজিজ দীর্ঘ দিন ধরে ওপেকে সৌদি আরবের প্রতিনিধিত্ব করেছেন; যে কারণে তেলসংক্রান্ত বিষয়ে তার কয়েক দশকের অভিজ্ঞতা রয়েছে। তবে নতুন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেয়ে সৌদি আরবের তেল ও ওপেক নীতিতে তিনি খুব একটা পরিবর্তন আনবেন না বলেই বিশ্বাস সৌদি কর্মকর্তা ও বিশেষজ্ঞদের।

আলজাজিরা



মন্তব্য