ঢাকা - জুলাই ২৩, ২০১৯ : ৭ শ্রাবণ, ১৪২৬

শিখ ধর্মের অবমাননাকারীকে ভারতের কারাগারে হত্যা

নিউজ ডেস্ক
জুন ২৪, ২০১৯ ১৮:০০
১১১ বার পঠিত

কারাগারের ভেতরে হত্যার শিকার হলেন ২০১৫ সালে শিখ ধর্মগ্রন্থ অবমাননার ঘটনার মূল অভিযুক্ত মহিন্দর পাল বিট্টু। শনিবার সন্ধ্যায় গুরুতর আহত অবস্থায় কারা কক্ষ থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তির পর মারা যান তিনি। অভিযোগ উঠেছে, একইসাথে দুই বন্দী তাকে হত্যা করেছে। ঘটনার পর সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় পাঞ্জাবজুড়ে জোরদার করা হয়েছে নিরাপত্তাব্যবস্থা। পাঞ্জাব সরকার এ ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত করার কথা জানিয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং এ হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

২০১৫ সালে ফরিদকোট জেলার বারগারিতে শিখ ধর্মগ্রন্থ অবমাননার ঘটনায় পাটিয়ালার নিউ নভ জেলে বন্দী ছিলেন ৪৯ বছরের মহিন্দর পাল বিট্টু। স্থানীয় সময় শনিবার সন্ধ্যা ৫টা ৪৫ মিনিট নাগাদ তাকে লোহার রড দিয়ে বেধড়ক মারধর করা হয়। এরপর গুরুতর আহত অবস্থায় মহিন্দরকে পাটিয়ালার নভ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। দুই কারাবন্দী গুরুসেবক সিং ও মনিন্দর সিং তাকে খুন করে।

ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর পরই তদন্তের নির্দেশ দেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি এ ঘটনা নিয়ে যেন কোনো গুজব ছড়ানো না হয় সে ব্যাপারেও সবাইক স্পষ্ট নির্দেশনা দেন তিনি। সব ধর্মের মানুষের প্রতি শান্তি রক্ষা করার আবেদনও জানান অমরিন্দর সিং। এরই মধ্যে জেলের সুপারিনটেনডেন্ট ও ব্যারাকের দায়িত্বে থাকা পুলিশ কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে পাঞ্জাব সরকার।

সূত্র জানিয়েছে, রাজ্যের নিরাপত্তা বজায় রাখার স্বার্থে এরই মধ্যে বিএসএফের ১০ কোম্পানি বাহিনী ও দুই কোম্পানি র্যাফকে পাঞ্জাবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। জেলের ভেতরে এই হত্যার ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে তিন দিনের মধ্যে রিপোর্ট দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পাঞ্জাব সরকার জানিয়েছে, কারাবন্দী হত্যার ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্তও করা হবে। গত বছরেই শিখ ধর্মগ্রন্থ অবমাননার ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মহিন্দর পাল বিট্টুকে গ্রেফতার করা হয়।

উল্লেখ্য, ডেরা সাচা সৌদার অনুগামী বিট্টুর বিরুদ্ধে ২০১৫ সালে ফরিদকোটের বারগারিতে শ্রী গুরু গ্রন্থ সাহিবকে অবমাননার অভিযোগ ওঠে। সেই ঘটনাকে ঘিরে রাজ্যজুড়ে বিক্ষোভ-প্রতিবাদের আগুন জ্বলে উঠেছিল। মোগা জেলায় পুলিশের গুলিতে মৃত্যু হয় দুই বিক্ষোভকারীর। ফরিদকোটের কোটকাপুরাতেও বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছিল পুলিশের বিরুদ্ধে।

এনডিটিভি



মন্তব্য