ঢাকা - মার্চ ২১, ২০১৯ : ৭ চৈত্র, ১৪২৫

উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বিজেপি জোটের টার্গেট ২২ আসন

নিউজ ডেস্ক
মার্চ ১৪, ২০১৯ ০৫:১৫
৭৪ বার পঠিত

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের মাধ্যমে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের অমুসলিম সম্প্রদায়কে ভারতীয় নাগরিকত্ব দেয়ার চেষ্টার প্রতিবাদে আসামে বিজেপি জোট ও মন্ত্রিত্ব ছেড়ে বেরিয়ে গিয়েছিল বিজেপির বিক্ষুব্ধ শরিক আসাম গণপরিষদ (অগপ)। গত মঙ্গলবার আসামের রাজধানী গৌহাটিতে মধ্যরাতে তাদের সাথে ফের জোট গঠন করেছে বিজেপি।

এমনটাই দাবি করেছেন দলের সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব। বুধবার তিনি দেশটির ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলায় আসেন। তিনি বলেন, তাদের লক্ষ্য লোকসভায় এ অঞ্চলের ২৫টি আসনের মধ্যে অন্তত ২২টি আসনে জয়ী হওয়া।

বৈঠকে রাম মাধব ছাড়াও উত্তরাঞ্চলীয় বিজেপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাধবও উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া আসাম গণপরিষদ, বোড়োল্যান্ড পিপলস ফ্রন্ট (বিপিএফ), আদিবাসী পিপলস ফ্রন্ট অব ত্রিপুরা (আইপিএফটি), জাতীয় পিপলস পার্টি, জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক পার্টি ও সিকিম ক্রান্তিকারী মোর্চার প্রতিনিধিরা বৈঠকে অংশ নেন।

বুধবার ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব ও আগরতলায় আইপিএফটির নেতাদের সাথে বৈঠক করেন বিজেপি নেতা রাম মাধব। আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে বিজেপি নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্সের রাজনৈতিক জোট হিসেবে নর্থ ইস্ট ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্স বা নেডা নামে এই জোট চূড়ান্ত করা হয়েছে।

মাধব তার ফেসবুকে পোস্ট করেছেন, ‘এই জোট এই অঞ্চলের ২৫টি আসনের মধ্যে অন্তত ২২টি আসনে জয়লাভ করবে এবং মোদিজিকে আবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে’।

মঙ্গলবারের বৈঠকে নাগাল্যান্ডের মুখ্যমন্ত্রী নিফিউ রিও, আসামের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনাওয়াল, মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী কনরাড সাংমা, মনিপুরের মুখ্যমন্ত্রী বীরেন সিং, অরুণাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী পেমা খন্তু ও এনডিএর আহ্বায়ক হিমন্ত বিশ্বাস সর্মাকে দেখা গেছে। মাধব অগপ সভাপতি আতুল বোরার সাথে পৃথক বৈঠক করেন। এই বৈঠকেই আগের জোট পুনর্গঠনের সিদ্ধান্ত নেন।

তিনি ফেসবুক পোস্টে আরো লিখেছেন, ‘উত্তর-পূর্বাঞ্চলের পার্লে এটি ছিল তৃতীয় দিন। দিমাপুর ও গৌহাটিতে আলোচনা চলতে থাকে। শেষ পর্যন্ত এ অঞ্চলের বড় দলগুলোর মৈত্রী গঠন করা গেছে। বিজেপি, এনপিপি, এনডিপিপি, এজিপি এবং বিপিএফ আসাম, নাগাল্যান্ড, মেঘালয়, মনিপুর ও অরুণাচল প্রদেশে একসাথে কংগ্রেসের দলকে পরাজিত করতে লড়াই করবে। ত্রিপুরায় বিজেপি আইপিএফটির একসাথে নির্বাচনে যুদ্ধ করবে।’

পিটিআই



মন্তব্য