ঢাকা - ডিসেম্বর ১২, ২০১৮ : ২৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫

ইতিহাস গড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করল টাইগাররা

নিউজ ডেস্ক
ডিসেম্বর ০২, ২০১৮ ২০:৩১
৮৪ বার পঠিত

ঢাকা টেস্টে সফরকারি ওয়েস্ট ইন্ডিজকে এক ইনিংস ও ১৮৪ রানে হারিয়ে ইতিহাস গড়েছে বাংলাদেশ। পাশাপাশি দুই ম্যাচ টেস্টে ক্যারিবীয়দের হোয়াইটওয়াশের লজ্জাও দিয়েছে টাইগাররা।

এর আগে ২০০৯ সালে ক্যারিবীয় দলটিকে তাদেরই মাটিতে ২-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ করেছিলেন মাশরাফি-সাকিবরা। অবশ্য গত জুলাইতে তাদেরই মাটিতে ২-০ ব্যবধানে হেরেছিল সাকিব বাহিনী। এজয়ের মাধ্যমে তারই যেন প্রতিশোধ নিল টাইগাররা।

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে ৫০৮ রানের বিশাল বড় সংগ্রহ করে। জবাবে সফরকারী দলটির প্রথম ইনিংস সব কটি ইউকেট হারিয়ে মাত্র ১১১ রান করতে সক্ষম হয়। ৩৯৭ রানে পিছিয়ে ফলোঅনে পড়ে যায় সফরকারীরা। দ্বিতীয় ইনিংসে আবারও তাদের ব্যাট করতে পাঠায় টাইগাররা।

ব্যাট করতে নেমে মেহেদী হাসান মিরাজের দুর্দান্ত বোলিং তাণ্ডবে ২১৩ রানে সবকটি উইকেট হারিয়ে গুটিয়ে যায় তারা।

প্রথম ইনিংসে ১৬ ওভারে ৫৮ রান দিয়ে ৭ উইকেট তুলে নেন মিরাহজ। আর দ্বিতীয় ইনিংসে পান ৫ উইকেট। এ ছাড়া সাকিব প্রথম ইনিংসে ৩টি এবং দ্বিতীয় ইনিংসে ১টি উইকেট পান।

এছাড়া তাইজুল প্রথম ইনিংসে কোনো উইকেট না পেলেও দ্বিতীয় ইনিংসে ৩ উইকেট নিয়ে দলের জয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন।

দ্বিতীয় ইনিংসে শিমরন হেটমায়ার ৯৩ রানের চমৎকার একটি ইনিংস খেলেও দলের হার এড়াতে পারেননি, শুধু ব্যবধান কমিয়েছেন মাত্র।

অন্যদিকে, ম্যাচের ১ম ইনিংসে বাংলাদেশের বড় সংগ্রহ গড়তে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছিলেন মাহমুদউল্লাহ। ২৪২ বল খেলে ১৩৬ রানের চমৎকার একটি ইনিংস খেলেন তিনি। তরুণ ওপেনার সাদমান ইসলাম খেলেন ৭৬ রানের চমৎকার একটি ইনিংস, যাতে তিনি বল খরচ করেছেন ১৯৯টি। আর মুমিনুল ও মিঠুন ২৯ রান করে নেন। ওপেনার সৌম্য সরকার করেন ১৯ রান। পরে পঞ্চম উইকেট জুটিতে সাকিব-মুশফিক কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। কিন্তু মুশফিক দ্রুত ফিরে গেলে (১৪) কিছুটা চাপে পড়ে যায় দল। তবে সেই চাপ সামলে দলকে এগিয়ে নেন সাকিব ও মাহমুদউল্লাহ জুটি। দুজনে ১১১ রানের জুটি গড়েন। তবে সাকিব ১৩৯ বলে ৮০ রান করে আউট হন। এক টেস্ট পর দলে ফিরে আট নম্বরে ব্যাট করতে নেমে লিটন দাস ৫৪ রানের চমৎকার একটি ইনিংস খেলেন।

ঢাকা টেস্টে ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হয়েছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। আর ম্যান অব দ্য সিরিজ পুরস্কার পেয়েছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান



মন্তব্য