ঢাকা - অক্টোবর ১৬, ২০১৮ : ৩০ আশ্বিন, ১৪২৫

কয়লা কেলেঙ্কারির হোতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে: নসরুল হামিদ

নিউজ ডেস্ক
আগস্ট ০৯, ২০১৮ ১৬:৩৩
১০৪ বার পঠিত

বাংলাদেশের বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে অধিকতর তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর বড়পকুরিয়া কয়লা কেলেঙ্কারির হোতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। জ্বালানি দিবস উদযাপন উপলক্ষে আজ (বুধবার) সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

সম্প্রতি দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে উত্তোলন করে মজুদ রাখা এক লাখ ৪২ হাজার টন কয়লা গায়েবের ঘটনা প্রকাশ পায়। এ কয়লার বর্তমান বাজার মূল্য ২২৭ কোটি টাকার বেশি।

এদিকে কয়লা সঙ্কটের কারণে দেশের একমাত্র কয়লাভিক্তিক দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া ৫২৫ মেগাওয়াট তাপবিদুৎ কেন্দ্রের উৎপাদনও বন্ধ হয়ে যায়। কয়লা গায়েবের ওই ঘটনায় দেশব্যাপী তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির দুর্নীতি তদন্তের অগ্রগতি সম্পর্কে নসরুল হামিদ বলেন, কয়লা গায়েবের বিষয়ে একটা সাময়িক তদন্ত হয়েছে। বড় আকারে তদন্তের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয থেকে কর্মকর্তারা গিয়েছিলেন। তারা এখনও রিপোর্ট পেশ করেননি। আশা করছি, এ সপ্তাহের মধ্যে রিপোর্ট পেশ করবেন। তারপর আমরা দাফতরিকভাবে ব্যবস্থা নেব।

এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেছেন, বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির একটা কোম্পানির অধীনে কাজ করে। তাদের দেখাশোনার বিষয়টি তাদের নিজস্ব ব্যাপার। প্রতি দিনের হিসাব, কত টাকা সেল হলো- এসব তো মন্ত্রণালয়ের দেখার বিষয় নয়, দায়িত্বও নয়। সুতরাং ওখানে টেনে-হিঁচড়ে মন্ত্রণালয়কে ঢুকিয়ে দিলে আরও জটিলতা তৈরি হবে।’

তিনি বলেন, ‘ইতোমধ্যে মামলা হয়েছে, সেটারও একটা তদন্ত চলছে। আমরা কোনোভাবে কোনো জায়গায় কোনো গাফিলতিকে প্রশ্রয় দেব না। আমরা কোনো দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দেব না। আগামীতে দুর্নীতিমুক্ত জ্বালানি ব্যবস্থা তৈরি করতে চাই।’

এ সময় মধ্যপাড়া কঠিন শিলার খনির পাথর গায়েবের বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে কোনও অভিযোগ পাইনি। একটি নীরিক্ষা প্রতিবেদনের ভিত্তিতে এই অভিযোগ এসেছে। আমরা চাই সবক্ষেত্রে এমন নীরিক্ষা হোক।



মন্তব্য