ঢাকা - জুলাই ২৩, ২০১৮ : ৮ শ্রাবণ, ১৪২৫

ভারত যাচ্ছেন রুহানি, রাশিয়া সফরে আব্বাস

নিউজ ডেস্ক
ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮ ০৯:২২
২৪০ বার পঠিত

ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি তিনদিনের সফরে আগামী বৃহস্পতিবার ভারতে যাচ্ছেন। এ সফরে তিনি আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ঘটনাবলী নিয়ে আলোচনা করবেন। এছাড়া, দু দেশের মধ্যকার বাণিজ্য নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা হবে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে প্রেসিডেন্ট রুহানি এ সফর করবেন। গতবছর মোদির পক্ষে ভারতের সড়ক ও পরিবহনমন্ত্রী নিতিন গাদকারি প্রেসিডেন্ট রুহানির কাছে এ আমন্ত্রণ পৌঁছে দিয়েছিলেন। সে সময় রুহানির শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দেন নিতিন গাদকারি।

২০১৬ সালের মার্চ মাস থেকে ইরান ও ভারতের মধ্যে তেল বহির্ভূত বাণিজ্যের পরিমাণ বেড়ে ৪৭৪ কোটি ডলারে পৌঁছেছে। এর আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে বাণিজ্য বাড়ার পরিমাণ ৪.১৭ ভাগ বেশি। ইরান হচ্ছে ভারতের তৃতীয় প্রধান তেল সরবরাহকারী দেশ। ২০১৬ সালের এপ্রিল মাস থেকে ২০১৭ সালের অক্টোবর মাস পর্যন্ত ইরান থেকে এক কোটি ২৫ লাখ টন অপরশোধিত তেল কিনেছে ভারত।

প্রেসিডেন্ট রুহানির সফর সম্পর্কে 'দি হিন্দু বিজনেস লাইন' লিখেছে, ইরানের প্রেসিডেন্টকে স্বাগত জানাতে পুরোপুরি প্রস্তুত দিল্লি। এ সফরে দু দেশের মধ্যে সম্পর্ক বাড়বে বলে পত্রিকাটি মন্তব্য করেছে।অন্যদিকে ফিলিস্তিনি স্বশাসন কর্তৃপক্ষের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস রাশিয়া সফরে গেছেন। এ সফরে তিনি রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন এবং ফিলিস্তিন-ইসরাইল কথিত শান্তি আলোচনায় মার্কিন আধিপত্য নস্যাৎ করতে তিনি রাশিয়ার পক্ষ থেকে বৃহত্তর ভূমিকা পালনের আহ্বান জানাবেন।

ফিলিস্তিনের কর্মকর্তারা বেশ কিছুদিন ধরে বলে আসছেন, ফিলিস্তিন ও ইসরাইল ইস্যুতে আমেরিকা পক্ষপাতপূর্ণ অবস্থান নিয়েছে। তবে ভবিষ্যত আলোচনায় এর অবসান হতে হবে। ফিলিস্তিনি স্বশাসন কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তারা আরো বলছেন, ইসরাইলের সঙ্গে ভবিষ্যত কথিত শান্তি আলোচনায় প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস রাশিয়াসহ আরো কয়েকটি দেশকে যুক্ত করতে চান। মার্কিন সরকারের ইসরাইলপন্থি অবস্থানের কারণে তিনি এ পদক্ষেপ নিয়েছেন।

মাহমুদ আব্বাসের কূটনৈতিক উপদেষ্টা মাজদি আল-খালিদি বলেছেন, আন্তর্জাতিক শান্তি আলোচনার ক্ষেত্রে রাশিয়া ও পুতিন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারেন। এর আগে, জাতিসংঘে নিযুক্ত ফিলিস্তিনের রাষ্ট্রদূত রিয়াদ মানসুর গত শনিবার বলেছেন, তারা ভবিষ্যতে কথিত শান্তি আলোচনায় চীন ও আরব লীগকে অন্তর্ভুক্ত করতে চান। আমেরিকার কর্তৃত্বকামী আচরণের কারণে তারা এমনটি চিন্তা করছেন বলে জানান রিয়াদ মানসুর।

গত ৬ ডিসেম্বর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ফিলিস্তিনের বায়তুল মুকাদ্দাস শহরকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছেন। এরপর থেকে ফিলিস্তিনিরা ব্যাপকমাত্রায় ক্ষুব্ধ হয়েছেন এবং প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস তখন বলেছিলেন, ভবিষ্যতে ফিলিস্তিন-ইসরাইল আলোচনায় আমেরিকাকে আর মধ্যস্থতাকারী হিসেবে মানবেন না তিনি।



মন্তব্য