ঢাকা - ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০১৮ : ১০ ফাল্গুন, ১৪২৪

জাবি শিক্ষার্থীর ৭ বছরের পরিচর্যায় ফুটল 'নাইট কুইন'

নিউজ ডেস্ক
সেপ্টেম্বর ০২, ২০১৬ ২০:৫০
 

unnamed (1)নাইট কুইন দুর্লভ ফুল। এই ফুলের জন্য অপেক্ষা করতে হয় বছরের পর বছর। আবার যে রাতে ফোটে, সেই রাতেই ঝরে পড়ে। ফুলটি দেখতে যেমন সুন্দর, তেমনই গন্ধেও অতুলনীয়। সাদা রঙের ফুলের ভেতর ঘিয়ে রঙের এক আবরণ আর সুমিষ্ট গন্ধ নাইট কুইনকে দিয়েছে রাজকীয় চেহারা। এজন্য একে বলা হয় রাতের রানি। আর ফুল প্রেমীদের কাছে রয়েছে এর বেশ কদর। এর বৈজ্ঞানিক নাম Peniocereus greggii।


সম্প্রতি এই দুর্লভ রাতের রানি ফুটেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় মীর মশাররফ হোসেন হলে এ ব্লকের ৪০৭ নং কক্ষে। গাছটির বয়স ৯ বছর। প্রথম ফুল গাছটি সংগ্রহ করেন ৩২ তম আবর্তনের এক শিক্ষার্থী। পরর্বতীতে পরিচর্যা সুযোগ পান মো. তোয়াহা(ইতিহাস ৩৬ তম আবর্তন)। দীর্ঘ ৭ বছর ধরে অপেক্ষায় থাকার পর মো. তোয়াহার নিবিড় পরিচর্যায় প্রথম এই রাতের রাণীর দেখা মেলে। পরবর্তীতে শিহার শাহরিয়ার(ইতিহাস ৩৮ তম আবর্তন) পরিচর্যায় দ্বিতীয় বারের মত প্রায় দেড় বছর পর আবার দেখা মেলে ফুলটির। বর্তমানে মোঃ আবু রায়হান (৪১ তম আবর্তন প্রাণ রসায়ন ও অনুপ্রাণ বিভাগ)যত্নে বারান্দায় টবে রাখা রাতের রানি আবার ২৯ আগস্ট সোমবার দিবাগত রাতে পায় পুর্ণতা। ফুটে দুইটি ফুল। আজ দিবাগত রাতে শেষ তিনটি ফুল ফোটে। প্রাপ্ত কলি থেকে পুরো ফুল ফুটতে ১৫ থেকে ২০ মিনিটের মতো সময় লাগে।


unnamedঅনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে মোঃ আবু রায়হান (৪১ তম আবর্তন প্রাণ রসায়ন ও অনুপ্রাণ বিভাগ) বাংলাদেশ২৪অনলাইকে জানান, ফুল দুটি ফোটার পর গন্ধে মৌ মৌ করছে। সুগন্ধ নিয়ে আমার পড়ার টেবিলের পাশে সৌর্ন্দয ছড়াচ্ছে নাইট কুইন। এমন সুন্দর সময় বা স্মৃতি যাই বলুন না কেন ক্যাম্পাস লাইফে কি সবার হয় ??


বিরল ক্যাকটাস জাতীয় এ ফুলটির আদি নিবাস আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাঞ্চল এবং মেক্সিকো হলেও এখন বাংলাদেশের অনেক ফুল প্রেমীদের বাড়িতে থেকে শুরু করে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টানের হল গুলোতে এ ফুলের গাছ শোভা পায়। এই ফুলের বৈশিষ্ট্য অন্যান্য যে কোনো ফুলের তুলনায় একটু আলাদা। বছরের মাত্র এক রাত এবং রাতের কোনো এক সময় ফোটাই এর স্বভাবগত বৈশিষ্ট্য।


প্রথম পাতার যে কোনো দিকে ছোট একটি গুটির মতো বের হয়। এই গুটি আস্তে আস্তে বড় হয়। ১৪ থেকে ১৫ দিনের মধ্যে সেই ফুলের গুটি থেকে কলি রূপান্তরিত হয়। যে রাতে ফুল ফুটবে সেদিন বিকেলেই কলিটি অদ্ভুত সুন্দর সাজে সজ্জিত হয়ে ওঠে। পৃথিবী অন্ধকারে ছেয়ে গেলে আস্তে আস্তে মেলতে শুরু করে নাইট কুইনের কলি। রাতের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে মেলতে থাকে একটি দুটি করে পাপড়ি। সেইসঙ্গে মিষ্টি এক ধরনের গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে চারদিকে। এ গন্ধে তীব্রতা না থাকলেও আছে এক ধরনের অদ্ভুত মাদকতা। রাত যত বাড়তে থাকে তার রূপ ততই খুলতে থাকে। আমাদের দেশে এ ফুল ফোটে বর্ষাকালে।


মো. ইউসুফ জামিল


জাবি প্রতিনিধি


বাংলাদেশ২৪অনলাইন/টিএম



মন্তব্য