ঢাকা - ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০১৮ : ১১ ফাল্গুন, ১৪২৪

বিনা বেতনে চাকরি!

নিউজ ডেস্ক
জানুয়ারি ০৪, ২০১৮ ১৬:২০

শিরিণ আক্তার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগ থেকে অনার্সসহ মাস্টার্স পাস করেছেন ১৯৯৬ সালে। তার স্বামী এহসানুল করিমও একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একই সালে মার্কেটিং বিভাগ থেকে অনার্সসহ এমবিএ পাস করেন। শিরিণ ও তার স্বামী দুইজনেই নাটারের বড়াইগ্রাম মডেল কলেজে শিক্ষকতা করছেন ১৯৯৮ থেকে। দুইজনের কারোরই বেতন নেই।

সাবিনা ইয়াসমিন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ থেকে অনার্সসহ মাস্টার্স পাস করেছেন ১৯৯৮ সালে। তিনি বগুড়ার শেরপুরে অবস্থিত সীমাবাড়ি মহিলা কলেজে শিক্ষকতা করছেন। কলেজটি ১৯৯৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং তখন থেকে গত ১৯ বছর ধরে তিনিও বিনা বেতনে চাকরি করে যাচ্ছেন।

পটুয়াখালীর বক্ষিয়া সাঈদীয়া কলেজের প্রভাষক ফাহমিদা জাহান বলেন, আমি জীববিদ্যা বিভাগে অনার্সে ফার্স্ট কাস পাওয়া। ২০০৩ সাল থেকে বিনা বেতনে চাকরি করছি এক দিন এমপিও হবে এই আশায়। বরিশালের উজিরপুরে অবস্থিত জল্লা ইউনিয়ন আইডিয়াল কলেজের অধ্যক্ষ ড. বিনয় ভূষণ রায় ২০০১ সাল থেকে তিনি বিনা বেতনে অধ্যক্ষ পদে চাকরি করছেন। বাহাজউদ্দিন সখীপুর টাঙ্গাইলের পলাশতলী মহাবিদ্যালয়ে সমাজকর্ম বিভাগের প্রভাষক। আবুজর গিফারী কলেজ থেকে তিনি অনার্স মাস্টার্স পাস করেছেন। ১২ বছর ধরে বিনা বেতনে চাকরি করছেন।



মন্তব্য