ঢাকা - মে ২২, ২০১৮ : ৮ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫

ধর্মগুরু রাম রহিম সিংয়ের যতো অপকর্ম

নিউজ ডেস্ক
আগস্ট ২৭, ২০১৭ ১৮:২৩
০ বার পঠিত
ভারতের ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিম সিং দেশটিতে ব্যাপক জনপ্রিয়। জনপ্রিয় হলেও তার বিরুদ্ধে রয়েছে নানা অপকর্মের অভিযোগ। সম্প্রতি গুরু রাম রহিম সিংকে ধর্ষণের অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করেছে আদালত। ২০০২ সালে দুই নারী অনুসারীকে ধর্ষণের অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় শুক্রবার এ রায় দেয় হরিয়ানার এক আদালত৷ অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় সাত থেকে দশ বছর কারাদণ্ড হতে পারে রাম রহিমের৷ তবে দণ্ড ঘোষণা করা হবে আগামীকাল সোমবার৷

তুমুল জনপ্রিয় হলেও গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের বিরুদ্ধে রয়েছে নানা অপকর্মের অভিযোগ। আসুন এক নজরে জেনে নিই সে সম্পর্কে-

বিলাসবহুল প্রাসাদে সেরা সুন্দরী

বিতর্কিত গুরু রাম রহিম প্রায় হাজার একর জমির মাঝখানে আয়নায় মোড়া এক প্রাসাদ নির্মাণ করেছেন। তার নাম ‘বাবা কি গুফা’। দামি আসবাব, সোফা, পর্দায় সাজানো বিলাসবহুল সেই প্রাসাদেই বাস গুরমিত রাম রহিম সিংহের। গুফায় তাকে ঘিরে থাকেন ২০০ জনেরও বেশি বাছাই করা শিষ্যা। তাদের চুল খোলা। পরনে সাধ্বীদের মতো দুধসাদা রঙের পোশাক। এরাই রাম রহিমের যত্নআত্তি, দেখভাল করেন। সেই গুফায় প্রবেশাধিকার আছে মাত্র কয়েক জনের। তাও আঙুলের ছাপ, চোখের মণি-র মতো বায়োমেট্রিক তথ্য মিললে তবেই ভিতরে যাওয়ার অনুমতি মেলে।

বিলাসবহুল ১০০টি গাড়ি

ধর্মগুরু হলেও রাম রহিমের পছন্দ শিফনের রঙবেরঙের জামা, বাহারি জুতো। তার জামাকাপড় তৈরির জন্য নিজস্ব ফ্যাশন ডিজাইনার রয়েছেন। রয়েছেন নিজস্ব ‘হেয়ার ড্রেসার’-ও। রাম রহিমের কনভয়ে বিলাসবহুল ১০০টি গাড়ি। তার মধ্যে ১৬টি কালো রঙের ফোর্ড এনডেভার। বাবা প্রাসাদ থেকে বের হলে সব গাড়ি তাবু দিয়ে ঢেকে দেয়া হয়। বাবা নিজেই ঠিক করেন, তিনি কোন গাড়িতে উঠবেন। বাবাজি ১৫ আগস্টেই ৫০ বছরে পা দিলেন। সেদিন ৩ ইঞ্চি মোটা, ৪২৭.২৫ বর্গফুটের কেক তৈরি হয়েছিল।

শিশুর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে অশান্তি

১৯৯৮ সালে বেগু গ্রামের একটি শিশু ডেরার জিপে চাপা পড়ে মারা যায়। গ্রামবাসীদের সঙ্গে ডেরার বিরোধ শুরু হয়। আর সেই খবর প্রকাশ করায় সাংবাদিকদের ধমক দেওয়া হয়, হুমকি দেওয়া হয়। পরে ডেরা সাচ্চা সৌদা আর সাংবাদিকদের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টির মিটমাট হয়।

আস্তানায় ধর্ষণ চেম্বার

গুরু রাম রহিম নিজেকে দেবতা দাবি করে তার সেবায় নিয়োজিত নারীদের ধর্ষণ করতেন বলে অভিযোগ উঠেছে। যে দুই নারী রাম রহিমের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনেন, তাদের লিখিত জবানবন্দিতে পাওয়া গেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য।

ধর্ষণের প্রায় ১০ বছর পর রাম রহিমের দুই সেবিকার জবানবন্দি রেকর্ড করা হয় ২০০৯ ও ২০১০ সালে। ভারতের সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (সিবিআই) বিচারকদের সামনে দুই নারীর জবানবন্দির যে নথি হাজির করা হয়েছে, এতে অভিযোগের ধারাবাহিক বর্ণনা রয়েছে। গোপন আস্তানায় ধর্মগুরু রাম রহিম কীভাবে তার সেবিকাদের ধর্ষণ করেন, তার রোমহর্ষক বর্ণনা ওঠে এসেছে এতে। জবানবন্দির তথ্য অনুযায়ী, আন্ডারগ্রাউন্ডে রয়েছে রাম রহিমের ধর্ষণ চেম্বার। এর নাম ‘গুফা’। সাধ্বী লাভের আশায় যেসব নারী আসতেন, তাদের এখানে নিয়ে যাওয়া হতো। শুধু নারী ভক্তদের রাম রহিমের সেবায় নিয়োজিত করা হতো এবং গুফার পাহারায়ও থাকত নারীরা।



মন্তব্য

Bangladesh24Online.com

সম্পাদকঃ আলী অাহমদ

যোগাযোগঃ ১৪৮/১, গ্রীণ ওয়ে, নয়াটোলা, মগবাজার, ঢাকা-১০০০
ফোনঃ ০১৭৯৪৪৪৯৯৯৭-৮
ইমেইলঃ bangladesh24online.news@gmail.com

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি ।

Website Design & Maintenance: Primex Systems